• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১২:১৩ পূর্বাহ্ন
  • Bengali Bengali English English
নোটিশ :
* ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে দেশবাসীকে বীরযোদ্ধা অনলাইন পত্রিকার পক্ষ থেকে জানাই প্রাণ ঢালা অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা * বিভিন্ন বিভাগ, জেলা ও উপজেলাতে অভিজ্ঞ সংবাদকর্মী  আবশ্যক। আগ্রহীদের নিম্নে ঠিকানায় যোগাযোগ করার জন্য জানানো যাচ্ছে।

শেরপুরে ইন্টার্ন চিকিৎসকদের সড়ক অবরোধ

বীরযোদ্ধা / ২০
প্রকাশিত : ৪:৪১ পিএম, (বুধবার) ২১ এপ্রিল ২০২১

নাজমুল হোসাইন, শেরপুর :

শেরপুরে জেলা সদর হাসপাতালে কর্মরত এক নারী ইন্টার্ন মেডিকেল এ্যাসিস্ট্যান্টকে উত্যক্তের প্রতিবাদ করায় আরেক ইন্টার্ন মেডিকেল এ্যাসিস্ট্যান্টকে মারধর করার অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে আজ বুধবার দুপুরে শতাধিক ইন্টার্ন মেডিকেল এ্যাসিস্ট্যান্টরা তাৎক্ষণিক হাসপাতালের সামনের সড়ক প্রায় ১ ঘন্টা অবরোধ করে রাখে।

এদিকে ওই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে উত্যক্তকারী আরাফাত (২৩)কে আটক করেছে পুলিশ। আরাফাত শহরের নারায়ণপুর ফ্যাক্টরি মোড়স্থ মৃত আব্দুুল হামিদের ছেলে।

জানা যায়, রাজধানী ঢাকার সাইক মেডিকেল ইনস্টিটিউটের ম্যাটসের শিক্ষার্থী পপি আক্তার (২১) জেলা সদর হাসপাতালে ইন্টার্নশীপ করছিলেন। তিনি হাসপাতালের পাশেই একটি বাসায় ভাড়া থাকতেন। বাসা থেকে হাসপাতালে যাতায়াতের সময় শহরের নারায়ণপুর এলাকার আরাফাত নামে এক যুবক পপিকে দীর্ঘদিন থেকে উত্যক্ত করে আসছিল। উত্যক্তের প্রতিবাদ করায় কিছুদিন আগে পপির বন্ধু নাজমুল ইবনে হাফিজ শুভসহ কয়েকজনকে মারধরের হুমকি দেয় বখাটে আরাফাত।

এরই জের ধরে বুধবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে পপির বন্ধু শুভকে হাসপাতাল থেকে ডেকে নিয়ে পিটিয়ে আহত করে আরাফাত, হালিম ও রনিসহ কয়েকজন। পরে পপি ও শুভ’র শতাধিক সহপাঠী বিক্ষুব্ধ হয়ে জেলা সদর হাসপাতালের সামনের সড়ক অবরোধ করে।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং অভিযান চালিয়ে উত্যক্তকারী আরাফাতকে আটক করে।

শুভর বন্ধু ইন্টার্ন সাকিবুল হাসান, মিনহাজ উদ্দিন কিবরিয়াসহ কয়েকজন বলেন, স্থানীয় বাসিন্দা আরাফাত আমাদের বান্ধবিকে প্রতিনিয়ত উত্যক্ত করে আসছিল। শুভসহ আমরা কয়েকজন এর প্রতিবাদ করায় জেলা সদর হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডে কর্তব্যরত অবস্থায় শুভকে ডেকে নিয়ে আরাফাতসহ তার বন্ধুরা পিটিয়ে আহত করেছে। এর আগেও আমরা সিভিল সার্জন বরাবর অভিযোগ দিয়েছিলাম। তখন পুলিশকে জানানোও হয়েছিল, কিন্তু এর প্রতিকার মেলেনি। আমরা ওই বখাটেদের সুষ্ঠু বিচার চাই।

জেলা সদর হাসপাতালের আরএমও ডাঃ খাইরুল কবীর সুমন জানান, ঘটনার বিষয়ে আমাদের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষসহ পুলিশকে আগেও অবহিত করা হয়েছিল। এরপরও আজ স্থানীয় কিছু ছেলে হাসপাতালের এক ইন্টার্ন মেডিকেল এ্যাসিস্ট্যান্টকে মারধর করেছে। ঘটনাটির সুষ্ঠু তদন্ত প্রয়োজন।

সদর থানার ওসি মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, ওই ঘটনায় আরাফাত নামে ১ যুবককে আটক করা হয়েছে। ঘটনার বিষয়ে থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর