• মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০১:৩৭ অপরাহ্ন
  • Bengali Bengali English English
নোটিশ :
* ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে দেশবাসীকে বীরযোদ্ধা অনলাইন পত্রিকার পক্ষ থেকে জানাই প্রাণ ঢালা অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা * বিভিন্ন বিভাগ, জেলা ও উপজেলাতে অভিজ্ঞ সংবাদকর্মী  আবশ্যক। আগ্রহীদের নিম্নে ঠিকানায় যোগাযোগ করার জন্য জানানো যাচ্ছে।

মুক্তাগাছায় বিজয় হত্যা মামলার আসামিরা এখনো ধরা ছোঁয়ার বাইরে

বীরযোদ্ধা / ৭৫
প্রকাশিত : ৮:৫৫ পিএম, (বুধবার) ৯ জুন ২০২১

ময়মনসিংহ ব্যুরো :

মুক্তাগাছা উপজেলা তামাকপট্টি এলাকার লিটন সাহা ও নারী নেত্রী সোমা সাহার দ্বিতীয় ছেলে এসএসসি পরীক্ষার্থী বিজয় সাহা ওরফে নীল হত্যার তিন মাসেও কোনো আসামি গ্রেপ্তার না হওয়ায় মুক্তাগাছা থানার সামনে ব্যানার নিয়ে সড়কে দাঁড়ালেন বিজয় সাহা ওরফে নীলের মা-বাবা। এ সময় কান্না জড়িত কন্ঠে বিজয়ের বাবা লিটন সাহা ও মা সোমা সাহা উপস্থিত সাংবাদিকদের কাছে বলেন আমার ছেলে বিজয় হত্যার আসামিদের গত তিন মাস পার হওয়ার পরও কোনো আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। আসামিরা হলো হাসান ওরফে (মিম), রাজিব মিত্র, মিঠুন চক্রবর্তী, হৃদয় চন্দ্র দে, মুরগি রবিন, টিপু সুলতান, হাফিজুল ইসলামসহ অজ্ঞাত আরও ২০ থেকে ২৫ জন।

২ এপ্রিল রাতে মুক্তাগাছা শহরের জমিদার বাড়ির সংলগ্ন তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এসএসসি পরীক্ষার্থী বিজয় সাহা ওরফে নীল সন্ত্রাসীদের ছুরিকাঘাতে নির্মমভাবে নিহত হয়। সে শহরের তামাকপট্টি এলাকার লিটন সাহা ও নারী নেত্রী সোমা সাহার দ্বিতীয় ছেলে বলে জানা যায়।

এ বছর তার নবারুন বিদ্যানিকেতন থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার কথা ছিল। এ ঘটনায় হত্যা মিশনে অংশ গ্রহণকারী সাত আসামির বিরুদ্ধে বিজয়ের মা সুমা সাহা বাদী হয়ে মুক্তাগাছা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয় ময়মনসিংহ জেলার সিআইডি অফিসকে। মামলা তিন মাসেও কোনো আসামি গ্রেফতার করতে পারেনি সিআইডি পুলিশ।

এ নিয়ে মুক্তাগাছায় একাধিক মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিজয় সাহা ওরফে নীলের স্কুলের সহপাঠীরা। তারা মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করে ময়মনসিংহ টাঙ্গাইল মহাসড়ক অবরোধ করেন। মানববন্ধন ও সড়ক অবরোধে মা সোমা সাহা ও বাবা লিটন সাহা তারা ছেলে হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও বিচার দাবি করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ময়মনসিংহ জেলা পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) উপ-পরিদর্শক আবুল কাশেম বলেন, তারা মামলা পাওয়ার পরপরই বিভিন্ন স্থানে আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চালান পাশাপাশি বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন।

এ সময় (সিআইডি) উপ-পরিদর্শক আবুল কাশেম আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, অবিলম্বে আসামিদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হবে বলে জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরও খবর