• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৮:২৪ পূর্বাহ্ন
  • Bengali Bengali English English
নোটিশ :
* ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে দেশবাসীকে বীরযোদ্ধা অনলাইন পত্রিকার পক্ষ থেকে জানাই প্রাণ ঢালা অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা * বিভিন্ন বিভাগ, জেলা ও উপজেলাতে অভিজ্ঞ সংবাদকর্মী  আবশ্যক। আগ্রহীদের নিম্নে ঠিকানায় যোগাযোগ করার জন্য জানানো যাচ্ছে।

ত্রিশালে ফুটপাতে বাড়ছে ঈদের কেনাকাটা

বীরযোদ্ধা / ৮০
প্রকাশিত : ৫:১৭ পিএম, (শুক্রবার) ৭ মে ২০২১

আবু রাইহান :

ধনী গরীব নির্বিশেষে ঈদ উৎসব সবার। কিন্তু ঈদ উৎসব রাঙানোর অন্যতম অনুষঙ্গ নতুন পোশাক কেনার ব্যাপারটি সম্পূর্ন উল্টোটি হয়। আর্থিক সামর্থ সবার সমান না হওয়ায় ভিন্ন ভিন্ন ছাদের তলা থেকে কেনাকাটার এই পর্বটি সারতে হয়। যাদের সামর্থ বেশি তাদের কেনাকাটা হয় আলো ঝলমল শপিংমলে। যাদের কম তাদেরটা হয় মধ্যম গোছের বিপণীগুলো থেকে। আর যাদের সামর্থ একেবারেই কম কেনাকাটার জন্য তাদের ফুটপাতের দোকানের ওপরই নির্ভর করতে হয়

আয় রোজগার যার যেমনই হোক না কেন; পরিবার পরিজনদের নিয়ে সবাই এ দিনটি হাসি আনন্দে কাটাতে চায়। এজন্য ঈদ আসলে শুরু হয়ে যায় সাধ ও সাধ্যের মধ্যে সমন্বয়। এই সমন্বয় করেই চলে কেনাকাটা। করোনা মহামারীর মাঝে আসন্ন ঈদ ঘনিয়ে আসায় ইতোমধ্যে সেটি শুরুও হয়ে গেছে

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার পৌর এলাকার জামে মসজিদ রোড ও ব্রিজ থেকে থানা রোড মোড় পর্যন্ত দু’পাশে ফুটপাত, ছানাউল্লাহ সুপার মার্কেট সংলগ্ন ফুটপাত, আলতাব সুপার মার্কেট সংলগ্ন ফুটপাত, মেয়র মার্কেট সংলগ্ন ফুটপাতের ওপর গড়ে ওঠা দোকানে অল্প আয়ের মানুষের সমাগম বৃদ্ধি পেয়েছে। সাধ্যের মধ্যে থেকে পরিবারের সবার জন্য নতুন পোশাক কেনকাটার পালা সারছেন অল্প বিত্তের মানুষেরা। এখানে তুলনামূলক কম দামের গার্মেন্টসের পোশাক পাওয়া যায়।

থানা রোড সড়কের ওপর গড়ে ওঠা এই বাজার ঘুরে দেখা যায়, ছোটদের টি-শার্ট ১৫০ থেকে ২০০ টাকা পযর্ন্ত দামে বিক্রি হচ্ছে। বড়দের টি-শার্টও একই দামে পাওয়া যাচ্ছে। ছোটদের শার্ট ২০০ থেকে ৪০০ পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। বড়দের শার্ট পাওয়া যাচ্ছে ৩০০ থেকে ৫০০ টাকায়। ছোটদের ২০০ টাকা থেকে শুরু করে ৩৫০ টাকার পযর্ন্ত পাঞ্জাবি পাওয়া যায়। এক্ষেত্রে বড়দের পাঞ্জাবির দাম একটু বেশি ৩০০ থেকে ৫৫০ টাকা। মেয়েদের জামার দাম ৫০০ থকে ১০০০ টাকা।

শুক্রবার বিকেলে সুবীর সরকার নামে এক ব্যক্তি ত্রিশাল ছানাউল্লাহ সুপার মার্কেট সংলগ্ন ফুটপাতের বাজারে ছেলের জন্য শার্ট-প্যান্ট কিনতে এসে তিনি বলেন, এখান থেকে ছেলেমেয়েদের সাধ্যের মধ্যে পোশাক কিনে দিতে পারি। এখানকার বেশ কয়েকটি দোকান ঘুরে ছেলেমেয়ের জন্য কেনাকাটা করলাম।

আলাপচারিতায় তিনি আরো বলেন, বড় দোকান থেকে পোশাক কিনতে গেলে অনেক টাকা গুনতে হবে। যা তার সাধ্য নেই। তাই এখান থেকেই কেনাকাটা করতে হলো।

আরেক ক্রেতা ত্রিশাল পৌর এলাকার মোবারক হোসেন বলেন, আমি চাষি মানুষ। পরের জমি বর্গা করে আমার সংসার চলে। আর ৬ দিন পর ঈদ। আমার কেনাকাটা না হলেও ছেলে ও মেয়েকে খুশি রাখতে তাদের নতুন জামা দিতে হবে। বড় বড় মার্কেট থেকে আমার পোশাক কেনার সামর্থ নেই। তাই ফুটপাত থেকে কম দামে ভালো জামা-কাপড় কিনতে এসেছি। অল্প টাকায় এখানে বেশ ভালো কাপড় পাওয়া যায়

ত্রিশাল ইসলামী ব্যাংকের নিচে একটি কাপড়ের দোকানের মালিক আল আমিন জানান, রোজার শেষ দিকে এসে আমাদের ব্যবসা বেশ ভালোই হচ্ছে। ঈদে নতুন জামা কাপড় কিনতে ক্রেতারা ভীড় জমাচ্ছে। জামা কাপড়ের দাম এখানে তেমন একটা বেশি না। ফলে ঈদ আসলেই এখানটাতে স্বল্প আয়ের মানুষের কেনাকাটার ভীড় লেগে যায়


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর