• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৮:০৮ পূর্বাহ্ন
  • Bengali Bengali English English
নোটিশ :
* ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে দেশবাসীকে বীরযোদ্ধা অনলাইন পত্রিকার পক্ষ থেকে জানাই প্রাণ ঢালা অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা * বিভিন্ন বিভাগ, জেলা ও উপজেলাতে অভিজ্ঞ সংবাদকর্মী  আবশ্যক। আগ্রহীদের নিম্নে ঠিকানায় যোগাযোগ করার জন্য জানানো যাচ্ছে।

কিশোরগঞ্জে পানির অভাবে পাট পঁচাতে না পেরে বিপাকে চাষীরা

বীরযোদ্ধা / ৮৬
প্রকাশিত : ৮:৪৪ পিএম, (বৃহস্পতিবার) ২৯ জুলাই ২০২১

ময়মনসিংহ ব্যুরো :

কিশোরগঞ্জে পানির অভাবে পাট পঁচাতে না পেরে বিপাকে রয়েছে চাষীরা। বর্ষা মৌসুমে এবার বৃষ্টির প্রবণতা কম থাকায় এবং শেষ পর্যায়ে একেবারেই বৃষ্টি না থাকায় এবং প্রচ- গরম ও প্রখর রোদ্র তাপের কারণে ইতোমধ্যে গ্রামাঞ্চলে খাল-বিল, ডোবাগুলে তে পানি শূন্য হয়ে পড়েছে। এতে কিশোরগঞ্জ জেলার বিভিন্ন এলাকায় পাট চাষীরা পানির অভাবে পাট পঁচাতে না পেরে চরম বিপাকে পড়েছে।

এদিকে হাট-বাজারগুলোতে আগাম চাষ করা পাটের আমদানি শুরু হয়েছে। বিশেষ করে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার নদী, নালা, খাল, বিল, পুকুর, ডোবা ও নিচু এলাকায় পানি না থাকায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে পাট পঁচানোর জাগগুলো। এতে এই এলাকায় পাট উৎপাদন ব্যাহত হওয়ার আশংকা করছেন পাট চাষীরা। অনেক এলাকায় স্যালো মেশিন ও মটার দিয়ে পানি দিচ্ছে পুকুর ও নিচু এলাকায়। চলতি মৌসুমে এ উপজেলায় ১হাজার ৭৬০ হেক্টর জমিতে পাট চাষাবাদ হয়েছে। বিশেষ করে বেশীর ভাগ পাট চাষ হয়েছে মহিনন্দ, মাইজখাপনসহ উচু অঞ্চলে। এবার ফলনও ভাল হয়েছে।

এদিকে যে সমস্ত এলাকায় আগাম পাট চাষ করা হয়েছে সেসব এলাকার কৃষকরা তাদের উৎপাদিত পাট বাজারে আনতে শুরু করেছে। কিন্তু বাজারে ক্রেতা না থাকায় সঠিক মূল্য পাচ্ছে না।

পাটের হাট-বাজারগুলো অনুসন্ধান করে জানা গেছে, এখন প্রতিমণ পাট গ্রেড অনুযায়ী ২ হাজার থেকে ২ হাজার ৫শ’ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।মহিনন্দের ভাস্করখিলা ব্লকের পাট চাষী ওমর সিদ্দিক, ইলিয়াছ, হাবিবুর রহমান, নজরুল জানান, কৃষি বিভাগের সুষম বীজ ব্যবহার করে পাটের ভালো ফলন হয়েছে। প্রতি বছর আমাদের ভাস্করখিলা বিলে প্রচুর পানি হতো এবারে বিলে পানি না থাকায় আমরা পাট নিয়ে বিপাকে পড়েছি।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ জামাল উদ্দিন জানিয়েছেন, চলতি মৌসুমে পাটের ফলন ভাল হয়েছে। তবে নদীতে এবং নিচু এলাকায় পানি না থাকায় এবং বৃষ্টি না হওয়ায় পাট সঠিকভাবে পঁচাতে না পেরে বিপাকে পড়েছে কৃষকরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর