• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০১:৫৯ পূর্বাহ্ন
  • Bengali Bengali English English
নোটিশ :
* ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে দেশবাসীকে বীরযোদ্ধা অনলাইন পত্রিকার পক্ষ থেকে জানাই প্রাণ ঢালা অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা * বিভিন্ন বিভাগ, জেলা ও উপজেলাতে অভিজ্ঞ সংবাদকর্মী  আবশ্যক। আগ্রহীদের নিম্নে ঠিকানায় যোগাযোগ করার জন্য জানানো যাচ্ছে।

ইভটিজার ভেবে পেটালো ইঞ্জিনিয়ারকে

বীরযোদ্ধা / ৪৭
প্রকাশিত : ৭:২৩ পিএম, (রবিবার) ২৭ জুন ২০২১

শেখ ফরিদ, ভালুকা (ময়মনসিংহ) :

ভালুকায় ইভটিজার সন্দেহে দুলাল (২২) নামে এক সিরামিক কোম্পানীল ইঞ্জিনিয়ারকে পিটিয়ে আহত করেছে ইভটিজিংয়ের শিকার ভিকটিমের মা, মামা ও নানীসহ কতিপয় যুবক।

ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল শনিবার (২৬ জুন) সন্ধ্যায় উপজেলার ভরাডোবা নতুন বাসস্ট্যান্ড এলাকায়।

আহত ইঞ্জিনিয়ার দুলালকে প্রথমে ভালুকায় ও পরে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

একাধিক সূত্রে জানা যায়, চাপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার বালিয়া গ্রামের ঝন্টু মিয়ার ছেলে প্রকৌশলী দুলাল মিয়া স্থানীয় আকিজ গ্রুপে চাকুরি করেন। শনিবার সন্ধ্যায় তিনি ভরাডোবা নতুন বাসস্ট্যান্ড এলাকার হুমায়ুন তালুকদারের ফার্ণিচারের দোকানে যান কাঠের টেবিল কেনার জন্য। কিন্তু পছন্দ না হওয়ায় তিনি রাস্তার পূর্বপাশে জসিম উদ্দিনের দোকানে যাওয়ায় সময় স্থানীয় ঐশি বিউটি পার্লারের মালিক চুমকি ও তার স্বামী মনির, মা সাহিদা ও ভাই চয়েজসহ স্থানীয় কিছু যুবক দুলালকে বেধরক মারপিট করে মাটিতে ফেলে দেয়। পরে স্থানীয় লোকজন দুলালকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। অবস্থা খারাপ দেখতে পেয়ে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। পরে সেখানে তাকে ভর্তি করা হয়।

স্থানীয় ব্যবসায়ী নাছির উদ্দিন জানান, আহত ব্যক্তিকে আমি আজই প্রথম দেখেছি। মনে হয়েছে তিনি নিরীহ এবং ভুল করে তার ওপর হামলা করা হয়েছে। তাকে বাঁচাতে গিয়ে আমিও আহত হয়েছি, পরে তাকে উদ্ধার করে ভালুকা হাসপাতালে নিয়ে যাই। কিন্তু অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে ময়মনসিংহ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, প্রথমে চুমকি ও তার ভাই চয়েজসহ কয়েকজন যুবক স্থানীয় মুলতাজিম মিলের এক শ্রমিককে ধরে মারধরের চেষ্টা চালায়। কিন্তু ওই যুবকটি জামা কাপড় ফেলে দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে একই রকম জামা গায়ে থাকায় দুলালকে তারা পিটিয়ে আহত করে।

ভরাডোবা বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি জসিম উদ্দিন জানান, একই রকম জামার কারণে এই ঘটনাটি ঘটেছে, তবে আহত ছেলেটি নিরীহ।

আহত ইঞ্জিনিয়ার দুলাল মিয়া জানান, তিনি স্থানীয় আকিজ গ্রুপে ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে চাকুরি করেন। ফার্ণিচারের দোকানে কাঠের টেবিল কিনতে এসে তিনি অতর্কিত হামলার শিকার হন। তিনি কিছুটা সুস্থ হওয়ার পর এ ব্যাপারে আইনী ব্যবস্থা নিবেন।

অভিযুক্ত চুমকির মোবাইলে ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। তবে তার ভাই চঞ্চল আহমেদ জানান, আমার ১১ বছরের ভাগ্নির সাথে এক ছেলের ইভটিজিংয়ের ঘটনা ঘটেছে। মারধরের ঘটনাটি ভুল বুঝাবুঝির কারণে হয়েছে।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শাহ আলম তরফদার জানান, ঘটনাটি আমি শুনেছি। ইভটিজারকে সঠিকভাবে সনাক্ত না করে মারধর করা ঠিক হয়নি।

ওসি মাহমুদুল ইসলাম জানান, অভিযোগ পেলে আইনি প্রদক্ষেপ নেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর