• শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:৩৭ পূর্বাহ্ন
  • Bengali Bengali English English
নোটিশ :
* ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে দেশবাসীকে বীরযোদ্ধা অনলাইন পত্রিকার পক্ষ থেকে জানাই প্রাণ ঢালা অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা * বিভিন্ন বিভাগ, জেলা ও উপজেলাতে অভিজ্ঞ সংবাদকর্মী  আবশ্যক। আগ্রহীদের নিম্নে ঠিকানায় যোগাযোগ করার জন্য জানানো যাচ্ছে।

আমন ক্ষেত থেকে কৃষকের মৃতদেহ উদ্ধার

বীরযোদ্ধা / ৮৮
প্রকাশিত : ৮:০০ পিএম, (বুধবার) ২৮ জুলাই ২০২১

ময়মনসিংহ ব্যুরো :

শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে একটি আমন ক্ষেত থেকে বিষু মিয়া (৪৫) নামে এক কৃষকের মরদেহ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ।

আজ বুধবার (২৮ জুলাই) সকালে উপজেলার নলকুড়া ইউনিয়নের ভারুয়া গ্রাম থেকে ওই মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। বিষু মিয়া ওই গ্রামের আব্দুল হাকিমের ছেলে।

জানা যায়, বিষু মিয়া মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বের হয়। কিন্তু প্রতিদিনের ন্যায় সে আর বাড়ি ফিরে না আসলে বাড়ির লোকজন তার খুঁজে বের হয়। খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে রাত সাড়ে ৩টার দিকে বাড়ির পাশে রোপণকৃত একটি আমন ক্ষেতে তার মৃতদেহ দেখতে পায়। পরে খবর পেয়ে থানা পুলিশ বুধবার সকালে কৃষক বিষু মিয়ার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য শেরপুর জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করে। বিষু মিয়ার মৃত্যুর সঠিক কোন কারন জানা যায়নি। তবে লাশের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে পুলিশ সুত্রে জানা গেছে।

এছাড়া অনুসন্ধানে জানা গেছে, বিষু মিয়ার ছেলে খোকন মিয়া বেশ কিছুদিন পুর্বে স্থানীয় ইউপি সদস্য হামিদুল্লার ছেলে আবু তাহের ৬০ হাজার, ওই গ্রামের আনোয়ার হোসেনের কাছে ১লাখ ৬ হাজার ও রতন মিয়ার কাছ থেকে ৮০ হাজার টাকা নিয়ে জিয়াউর রহমান নামে এক ব্যবসায়ীকে ২ লাখ ৮৫ হাজার টাকা দেয়। কিন্তু জিয়াউর রহমান পরবর্তীতে খোকনের টাকা দিতে অস্বীকার করে। ফলে বিপাকে পরে খোকন মিয়া। এক পর্যায়ে খোকন মিয়া জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে শেরপুরের পুলিশ সুপার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগটি ডিবি পুলিশের মাধ্যমে তদন্তও করা হয়। কিন্তু খোকন মিয়া প্রমাণ করতে না পাড়ায় বেঁচে যায় জিয়াউর রহমান। পরে গাঢাকা দেয় খোকন মিয়া। খোকন মিয়াকে না পেয়ে পাওনাদার আবু তাহের, আনোয়ার হোসেন ও রনত মিয়া গত ১৫ জুলাই শুক্রবার ভারুয়া বাজারে আবু তাহেরের পিতা ইউপি সদস্য হামিদুল্লাহ’র দোকানে ডেকে এনে বিষু মিয়াকে আটক তার ছেলের নেয়া টাকা তার কাছ থেকে ফেরত চান। অন্যথায় তার ছেলেকে বের করে দিতে বলেন।

স্থানীয় লোকজন এ বিষয়ে ১৮ জুলাই সোমবার পুনরায় সালিশ বসার তারিখ নির্ধারণ করে বিষু মিয়াকে ছেড়ে দেন। কিন্ত ১৮ জুলাই বিষু মিয়া নিজের নিরাপত্তার কথা ভেবে শালিশে উপস্থিত হয়নি। এরপর থেকে তার ছেলের পাওনাদাররা বিষু মিয়াকে নানাভাবে ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদর্শন করে আসছিল বলে বিষু মিয়ার পরিবার সুত্রে জানা গেছে।

লাশ উদ্ধারের খবরে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (নালিতাবাড়ি সার্কেল) আফরোজা নাজনীন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ঝিনাইগাতী থানার ওসি মোহাম্মদ ফায়েজুর রহমান বলেন, লাশ ময়না তদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর